ছাত্রলীগের বাধায় ইবির শিক্ষক নিয়োগ বোর্ড স্থগিত

0
18

অনলাইন ডেস্ক: ভোলার আলো.কম,

ছাত্রলীগ নেতাকর্মীদের আন্দোলনের মুখে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের (ইবি) শিক্ষক নিয়োগ বোর্ড স্থগিত হয়েছে। সোমবার রেজিস্ট্রার (ভারপ্রাপ্ত) এস এম আব্দুল লতিফ স্বাক্ষরিত প্রজ্ঞাপনে এ নিয়োগ বোর্ড স্থগিত করে কর্তৃপক্ষ।

বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার এস.এম আব্দুল লতিফ স্বাক্ষরিত প্রজ্ঞাপনে উল্লেখ করা হয়েছে, ৭ মে ২০১৮ তারিখের ফিন্যান্স এন্ড ব্যাংকিং বিভাগের প্রভাষক পদের, ১১ মে আইসিটি সেলের কম্পিউটার প্রোগ্রামার/ডাটাবেজ প্রোগ্রামার, সহকারী কম্পিউটার প্রোগ্রামার/সহকারী ডাটাবেজ প্রোগ্রামার ও সহকারী নেটওয়ার্ক ইঞ্জিনিয়ার/সহকারী হার্ডওয়ার ইঞ্জিনিয়ার পদের, ১২ই মে ফার্মেসি বিভাগের প্রভাষক ও সহকারী অধ্যাপক পদের, ১৩ই মে বায়োমেডিকেল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের প্রভাষক ও সহকারী অধ্যাপক পদের এবং ১৪ই মে এনভাইরনমেন্টাল সায়েন্স এন্ড জিওগ্রাফি বিভাগের প্রভাষক ও সহকারী অধ্যাপক পদের নিয়োগ নির্বাচনী বোর্ডের সভা অনিবার্য কারণবশত স্থগিত করা হলো। নিয়োগ নির্বাচনী বোর্ডের পরিবর্তিত তারিখ ও সময় পরবর্তীতে জানানো হবে।

জানা যায়, গতকাল রবিবার চাকরির দাবিতে দুই দফায় প্রধান ফটক অবরোধ করেন ছাত্রলীগের চাকরি প্রত্যাশী সাবেক ও বর্তমান নেতাকর্মীরা। পরে প্রক্টরিয়াল বডি এবং ছাত্রলীগের সভাপতি শাহিনুর রহমান শাহিন ও সাধারণ সম্পাদক জুয়েল রানা হালিম আন্দোলনকারীদের উপাচার্যের সঙ্গে আলোচনায় বসার আশ্বাস দিলে অবরোধ প্রত্যাহার করেন তারা। আজ সোমবার সকাল সাড়ে নয়টা থেকে পুনরায় চাকরির দাবিতে আন্দোলন শুরু করেন চাকরি প্রত্যাশীরা। এ সময় ছাত্রলীগের সাবেক নেতাকর্মী আনিছুজ্জামান লিটন, কাশেম, মিজানুর রহমান টিটু, শিমুল, খায়ের, মাহবুব এবং শাখা ছাত্রলীগের বর্তমান সভাপতি শাহিনুর রহমান শাহিনের কর্মী সজল, রিজভী, মোস্তফাসহ শতাধিক শতাধিক নেতাকর্মী অংশ নেন। শেষে ছাত্রলীগের আন্দোলনের চাপে পড়ে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন শিক্ষক নিয়োগ বোর্ড স্থগিত করে।

শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি শাহিনুর রহমান শাহিন বলেন, ‘বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকে কোনো প্রকার চাপ দেয়া হয়নি বরং চাকরি প্রত্যাশীদের বিষয়টি বিবেচনা করে দেখতে বলা হয়েছে।’

উপাচার্য অধ্যাপক ড. হারুন-উর-রশিদ আসকারী বলেন, ‘সার্বিক পরিস্থিতি বিবেচনা করে শিক্ষক নিয়োগ বোর্ড স্থগিত করা হয়েছে। তবে, কর্তৃপক্ষের পক্ষ থেকে চাকরি প্রত্যাশীদের চাকরি প্রদানের কোনো প্রতিশ্রুতি দেয়া হয়নি।’

(হামিদুর রহমান আজাদ, ৭মে-২০১৮ইং)

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here