‘খালেদাকে মৃত্যুর দিকে ঠেলে দিচ্ছে সরকার’

0
14

অনলাইন ডেস্ক: ভোলার আলো.কম,

বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াকে দেশের সব চেয়ে জনপ্রিয় মানুষ উল্লেখ করে দলটির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান বলেছেন, সেই মানুষটাকে সরকার ধীরে ধীরে মৃত্যুর দিকে ঠেলে দিচ্ছে।

রবিবার রাজধানীর জাতীয় প্রেসক্লাবে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

নজরুল ইসলাম খান বলেন ‘আমরা নেত্রীর মুক্তি চাই। একটি নিরপেক্ষ নির্বাচন দেখেতে চাই। ভোটে নির্বাচত হয়ে যারা ক্ষমতায় আসবেন তারা জনগণের কাছে জবাবদিহিতা করবেন ও দায়বদ্ধ থাকবেন। আর এ ধরনের নির্বাচন বর্তমান সরকারের অধীনে হতে পারে না। যার সাম্প্রতিক প্রমাণ খুলনার সিটি নির্বাচন।’

এ বিএনপি নেতার দাবি, সরকার পক্ষের আইনজীবীরা কোনও ভাবেই প্রমাণ করতে পারেননি খালেদা জিয়া অপরাধী। তারা কেবল অনুমানের ওপর ভিত্তি করে অভিযোগ করেছেন। কিন্তু আইন অনুমান চায় না, আইন তথ্য প্রমাণ চায়। কোনও তথ্য-প্রমাণই খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে ছিল না।

‘বেগম জিয়ার মুক্তি আইনের মাধ্যমেই চাই আমরা। কিন্তু সেটা যদি না হয়, আন্দোলনের মাধ্যমে হলে তখন আর আইনের প্রয়োজন হবে না। যেভাবেই হোক, মুক্ত খালেদা জিয়ার নেতৃত্বেই আমরা নির্বাচনে অংশগ্রহণ করবো।’

নির্দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচন হলে আওয়ামী লীগের জেতার কোনও সম্ভাবনা নেই উল্লেখ করে নজরুল বলেন, ‘এখন আমরা যে প্রস্তাব করছি একটা সময় সেটা আওয়ামী লীগের প্রস্তাব ছিল। তত্বাবধায়ক সরকার নিয়ে তারা যখন বলেছিল, আমরা সেটা মেনেছিলাম। কিন্তু তারা এখন আমাদের কথা মানবে না। কারণ তারা বুঝে গেছে নির্দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচন হলে তাদের জেতার কোনও সম্ভাবনা নাই।’

এ বিএনপি নেতা বলেন, ‘আমাদের কথা পরিষ্কার, সংসদ বাতিল করে সকলের অংশগ্রহণে নিরপেক্ষ নির্বাচন করতে হবে। সামনের জাতীয় নির্বাচনে যদি সেনাবাহিনী মোতায়েন করা না হয় তাহলে নিরপেক্ষ নির্বাচন হবে না।’

মাদকবিরোধী অভিযানে বন্দুকযুদ্ধের বিষয়টি উল্লেখ করে নজরুল ইসলাম বলেন, ‘সমাজ থেকে মাদকের অভিশাপ দূর করার জন্য সরকার যে প্রক্রিয়ায় কাজ করছে এবং এই প্রক্রিয়ার মধ্য দিয়ে শতাধিক মানুষ ইতোমধ্যে নিহত হয়েছে যা বলা হচ্ছে বন্ধুকযুদ্ধে নিহত। এমন মৃত্যু গ্রহণযোগ্য নয়।’

শান্তিপূর্ণ উপায়ে আন্দোলন চালাতে নেত্রীর (খালেদা) নির্দেশ আছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘নানা কৌশলে শান্তিপূর্ণভাবে গণতান্ত্রিক আন্দোলন চালিয়ে যাচ্ছি। একটা সময় আসবে, আমাদের আন্দোলন সংগ্রামে নেতাকর্মীদের সক্রিয়তা থাকবেই, এমনকি সরকারি দলের লোকদেরও সমর্থন থাকবে। আর এ আন্দোলনের মাধ্যমেই স্বৈরাচার সরকারের পতন ঘটবে।’

(হামিদুর রহমান, ৩জুন-২০১৮ইং)

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here