আমরা অসহায় মানুষের পাশে দাড়াঁই-কাসেম,

0
547

স্টাফ রিপোর্টার, ভোলার আলো.কম,

প্রবাদ আছে, মানুষ মানুষের জন্য, জীবন জীবনের জন্য। একটু সহানুভতি কি মানুষ পেতে পারেনা ও বন্ধু। তেমনি এদেশে কত অসহায় পথশিশু এবং এতিম প্রতিবন্ধি রয়েছে। তারা রাস্তায় বসে দিন কাটিয়ে দিচ্ছে। চলার পথে রাস্তার অানাছে-কানাছে দেখাযায় এই অসহায়দের। অনেক মানুষের টাকা পয়সা থাকা সত্বেও অসহায়দের পাশে দাড়ায়নি। মানুষের ধন সম্পদ বেশিদিন টিকে থাকেনা অঅজ অথবা কাল শেষ হয়ে যাবে। আমাদের সমাজের অনেক টাকা পয়সা ব্যক্তিবর্গ রয়েছেন। তারা যদি অসহায় মানুষের পাশে দা্ড়াঁয় মনে হয় বাংলাদেশে কোন গরিব থাকেনা। দেশে অনেক জনপ্রতিনিধরা রয়েছেন তারাও অনেক টাকা পয়সার মালিক। এসকল সম্পদশালী মানুষ প্রতিনিয়ত যদি অসহায় মানুষের পাশে দাড়াঁয় মনে হয়  কেউ গরিব থাকেনা।

আমার মতো সাধারণ পরিবারে জম্ন নিয়েও ছোট-খাটো চাকরীর কিছু টাকা ব্যয় করে থাকি এলাকার গরিব অসহায় মানুষের জন্য।মসজিদ কিংবা মাদ্রাসায় যতটুকু পারি দিয়ে সাহায্য সহযোগিতা করে থাকি। কোন গরিব অসহায় মা-বোন চিকিৎসা চালাতে না পারলে মাঝে মধ্যে সহযোগিতা করি। এটা মানুষ হিসেবে আমার দায়িত্ব ও কর্তব্য। সব সময় একটি কথাই চিন্তা করি যত টাকা আয় করি, তা একদিন থাকবেনা।তাই দুনিয়ার মানুষের পিছনে ব্যয় করলে উপকারে একদিন আসবেই।

জীবন হলো অনেক কষ্টের, এজগতে এক টাকা আয় করতে মাথার গাম পায়ে ফেলে আয় করি। তারপরও কিছু টাকা সমাজের অসহায় মানুষের পিছনে ব্যয় করি। এদেশে অনেক ধন-সম্পদের মালিক ছিল তাদের সেই ধন-সম্পদ আজ নেই। তারা কখনো গরিব অসহায় মানুষকে দিয়েও সাহায্য করেনি।

আমি অনেক সময় চিন্তা করি, আমি মাছ-মাংস দিয়ে ভাত খাচ্ছি আর আমার ঘরের পাশে একজন এতিম না খেয়ে দিন কাটিয়ে দিচ্ছে। আসলে এসকল জিনিস দেখলে নিজের কাছে খারাপ লাগে। যখন আমি ভাল পোষাক পরিধান, যখন পথ থেকে হেটে যাই গরিবরা আমার দিকে তাকিয়ে থাকে। কত সুন্দর পোষাক পড়ে রাস্তা দিয়ে হেটে যায় ওই মানুষটি। আমাদের এসকল অহংকারী জিনিস দেখে গরিব অসহায় মানুষ কষ্ট পেয়ে থাকে। সব সময় সকলের একটি কথা চিন্তা করা উচিৎ কিভাবে মানুষ হয়ে এজগতে বেচে থাকবো।জীবনে তো অনেক কিছু করে থাকি একটু অসহায় মানুষের পাশে দাড়িয়ে খেদমত করতে হবে।অোমাদের সরকারের প্রতি তাকালে হবেনা নিজেরাও এগিয়ে আসতে হবে সমাজ সেবার কাজে- মোঃ আবুল কাসেম সুলতান, ভোলা সদর উপজেলা উত্তর দিঘলদী ইউনিয়ন।

মোঃ আবুল কাশেম সুলতান, একজন সাধারণ পরিবারের সন্তান। কোটি কোটি টাকার সম্পদও নেই। যা আয় করেন তার কিছু টাকা এলাকার মসজিদ,মাদ্রাসা, এতিম,অসহায় গরিবকে সাহায্য করেন। এমনকি এলাকার কিছু মা-বোনরা রয়েছে তাদের চিকিৎসা চালানোর মতো আর্থিক নেই। তাদেরকে সাহায্য করাই আবুল কাসেমের মূল লক্ষ্য।আবুল কাশেম জম্নগ্রহণ করেন ভোলা সদর উপজেলার উত্তরদিঘলদী ইউনিয়নে।ছোটবেলা থেকেই ছিল মানুষের প্রতি তার ভালবাসা।

(হামিদুর রহমান আজাদ,২৪এপ্রিল-২০১৮ইং)

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here